আমাদের সরাইল

সরাইলে তৃণমূলের সর্বোচ্চ ভোট পেয়েও মনোনয়ন বঞ্চিত আহাদ

অদৃশ্য কারণে সর্বোচ্চ ভোট পেয়েও নৌকার মনোনয়ন পাননি আব্দুল আহাদ। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ তৃণমূলে মাত্র ৪ ভোট পাওয়া সাইফুল ইসলামকে মনোনয়ন প্রদান করে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার পাকশিমুল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম। কিন্তু নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ে তৃণমূল পর্যায়ে সর্বোচ্চ ভোট পেয়েও দলীয় মনোনয়ন পাননি একই ইউনিয়নের দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ। দলের উচ্চ পর্যায় থেকে মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়ায় হতাশ আব্দুল আহাদের সমর্থকরা।অপরদিকে খোশ মেজাজে আছেন তৃণমূল পর্যায়ে কম ভোট পাওয়া সাইফুল ইসলামের সমর্থকরা।

তবে আব্দুল আহাদ পাকশিমুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ে অনিয়মের অভিযোগ তুলে ২৭ অক্টোবর সংবাদ সম্মেলন করেন এবং তৃণমূলের রায়কে মূল্যায়ন করে দলীয় মনোনয়ন পুনঃবিবেচনা করতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

বুধবার সন্ধ্যায় ইউনিয়নের ভূইশ্বর বাজার এলাকায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত পাকশিমুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রথম সারির একাধিক নেতা জানান, সাইফুল ইসলাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়েও তৃণমূল নেতাকর্মীদের কোনো খোঁজখবর রাখেন না। তিনি ২০১৬ সালে নৌকা প্রতীকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কোনো নেতা-কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করেননি; তিনি বিএনপি-জামায়াতের নেতাদের নানাভাবে সুযোগ সুবিধা দিয়েছেন। পাশাপাশি এই পাঁচবছরে নানাভাবে তিনিও নিজের আখের গোছিয়ে নিয়েছেন। যার কারণে তিনি এখানকার দলের তৃণমূল নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন। এইবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সাইফুল ইসলাম দলের তৃণমূলের সমর্থন পেতে ব্যর্থ হন। প্রার্থী বাছাইয়ে তৃণমূলের ভোটাভুটিতে স্থানীয় আওয়ামী লীগের এক বিরাট অংশ তার বিরোধিতা করে। তিনি বর্তমানে একটি হত্যা মামলার আসামিও।

তৃণমূলের নেতারা আরও জানান, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তফশিল ঘোষণার পর সম্ভাব্য প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেন। স্থানীয়ভাবে ইউনিয়নের সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে উপজেলার নেতারা আলোচনায় বসেন।তৃণমূল পর্যায়ের চেয়ারম্যান প্রার্থী বাছাইয়ে ভোটাভুটি হয়। এসময় পাকশিমুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের তৃণমূলের মোট ১৮ ভোটের মধ্যে সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ ১২ ভোট পান। সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম ৪ ভোট পান। সর্বোচ্চ ভোট পাওয়ায় আব্দুল আহাদের অনুসারীরা ছিলেন উৎফুল্ল। কিন্তু অদৃশ্য কারণে সর্বোচ্চ ভোট পেয়েও নৌকার মনোনয়ন পাননি আব্দুল আহাদ। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ তৃণমূলে মাত্র ৪ ভোট পাওয়া সাইফুল ইসলামকে মনোনয়ন প্রদান করে।

ইউনিয়নের বেশ কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতা জানান, এখানে তৃণমূলের ভোটাভুটিকে মূল্যায়নসহ দলীয় মনোনয়ন পুনঃবিবেচনা করে ১২ ভোট পাওয়া আব্দুল আহাদকে নৌকা প্রতীক দিতে হবে; নইলে এখানে নৌকার ভরাডুবি হবে। এইবার সাইফুল ইসলামকে নিয়ে এখানে নৌকার বিজয় অসম্ভব। কারণ, তিনি একদিকে দলের তৃণমূল নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন, অপরদিকে তার বিরুদ্ধে রয়েছে অসংখ্য অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ।

পুবের আলো/সুমন/হানিফ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button