ফেসবুক কর্নার

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নমিনেশন বিক্রির হাট বসেছে

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোথাও কোথাও আজ নমিনেশন বিক্রির হাট বসেছে। নিলাম ডাকার মত অবস্থা। তৃণমুল ভোটের নামে হচ্ছে প্রহসন।

অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু :

দলীয় প্রতীকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের একটি ঐতিহাসিক ও যুগান্তকারী পদক্ষেপ। উদ্দেশ্য ছিল তৃণমুল পর্যায়ে গণতন্ত্রের চর্চাকে আরো মজবুত করা। এর ফলে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের গণতন্ত্র চর্চায় আরো অধিক অংশগ্রহণ সুযোগ লাভ এবং তাদের মধ্য থেকে সঠিক নেতৃত্ব বাছাইয়ের সুযোগ সৃষ্টি করা।

কিন্তু দলীয় কতিপয় অসৎ নেতাদের জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনার এই মহৎ উদ্দেশ্য আজ ভেস্তে যেতে বসেছে। রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ণের ফলে আজ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বঙ্গবন্ধুর নৌকা চলে যাচ্ছে সমাজের সবচেয়ে অগ্রহণযোগ্য, লুটেরা, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, বিতর্কিত ব্যক্তিদের হাতে। তারা টাকার বিনিময়ে নৌকা প্রতীক হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এদের দাপটে দলের দুর্দিনের ত্যাগী ও পোড়খাওয়া নেতাকর্মীরা আজ দলে কোনঠাসা। এসব কর্মীরা সারাজীবন দল করতে গিয়ে অনেকেই নিঃস্ব হয়ে গেছেন। দলে এখন তাদের কোন স্থান নেই। দলীয় কার্যালয়ে তাদের বসার জায়গা নেই।

স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ ও আওয়ামী লীগ বিরোধী কালো টাকার মালিকরা আজ দলে ঢুকে রাতারাতি দলের বড় বড় পদ পদবি বাগিয়ে নিচ্ছে। তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়ছে দলের ত্যাগী নেতাকর্মী ও বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ। এ অব্স্থা আজ শুধু তৃণমুলে নয় কেন্দ্র পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করছে।

অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোথাও কোথাও আজ নমিনেশন বিক্রির হাট বসেছে। নিলাম ডাকার মত অবস্থা। তৃণমুল ভোটের নামে হচ্ছে প্রহসন। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে তৃণমুলের ভোটে যারা নির্বাচিত হচ্ছেন তাদের নাম বাদ দিয়ে কেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে অন্যজনের নাম। এখানে নীতি আদর্শ ও দলের জন্য, দেশের জন্য ত্যাগের কোনমূল্য নেই। আজ টাকার কাছে বিক্রি হচ্ছে বিবেক ও মানবতা। বিষয়গুলোর প্রতি কেন্দ্র বিশেষ নজর না দিলে দলের জন্য চরম সর্বনাশ বয়ে আনবে।

জাতীয় আন্তর্জাতিক শত ষড়যন্ত্র ও প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে সফল রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজ বাংলাদেশ যখন সারা বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে; তখন দলীয় নেতাকর্মীদের আরো অধিক দায়িত্বশীল হওয়ার কথা, সেখানে হচ্ছে উল্টোটা।

সকলের মনে রাখতে হবে আজ চারিদিকে চলছে শকুনের আনাগোনা। আজ চারিদিকে নাগিনীরা ফেলিছে বিষাক্ত নিঃশ্বাস। আওয়ামী নেতা কর্মীদের মনে রাখতে হবে আওয়ামী লীগ ব্যর্থ হওয়া মানে বাংলাদেশ ব্যর্থ হওয়া। আওয়ামী লীগের পরাজয় মানে বাংলাদেশের পরাজয়। আমাদের মনে রাখতে হবে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা আজ বাংলাদেশকে যে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন; তা শুধু দেশে নয় অনেক বড় বড় শক্তিধর দেশেরও মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সুতরাং দলীয় নেতা কর্মীদের আরো অনেক ত্যাগের মানুসিকতা নিয়ে কাজ করতে হবে।

সবাইকে আওয়ামী লীগ বানিয়ে দল ভারী করার দরকার নেই। দল ভারী করার জন্য যে সব হাইব্রিডদের দলে ভীড়ানো হচ্ছে একদিন তারাই দলের জন্য কাল হয়ে দাঁড়াবে। মনে রাখতে হবে, এসব হাইব্রিডরা আওয়ামী লীগে আশ্রয় নিয়েছে হালুয়া রুটির লোভে। সময়মত ওরাই আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ হয়ে দলের সর্বনাশ করবে।

লেখক; আওয়ামী লীগ নেতা ও বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

পুবের আলো/সুমন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

https://www.facebook.com/PuberAloMedia/